Featured

আজ রোববার বহুল আলোচিত রাজন হত্যা মামলার রায় ঘোষণা

http://tistanews24.com/wp-content/uploads/2015/11/369.jpgতিস্তা নিউজ ডেস্ক : সিলেটের বহুল আলোচিত শিশু শেখ সামিউল আলম রাজন (১৩) হত্যা মামলার রায় আজ রোববার ঘোষণা করা হবে। হত্যাকাণ্ডের চার মাসের মাথায় সিলেট মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক আকবর হোসেন মৃধা আলোচিত এই মামলার রায় ঘোষণা করবেন। যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে গত ২৭ অক্টোবর তিনি এ তারিখ নির্ধারণ করেন।

এদিকে, হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেছেন রাজনের বাবা শেখ আজিজুর রহমান আলম ও মা লুবনা বেগম।

তারা বলেন, তাদের অবুঝ ছেলেকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তাই তারা হত্যাকারীদের ফাঁসি এবং তা দ্রুত কার্যকার দেখতে চান।

গত ৮ জুলাই সকালে সিলেট শহরতলীর কুমারগাঁয়ে ‘চোর’ সন্দেহে একটি ওয়ার্কশপে খুঁটির সাথে বেঁধে নির্মম নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয় ১৩ বছরের শিশু রাজনকে। নির্যাতনকারীরাই শিশুটিকে পেটানোর ভিডিও ধারণ করে এবং তা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়। ২৮ মিনিটের ওই ভিডিও চিত্রটি সামাজিক যোগাযোগে মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সর্বত্র তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

রাজনের ময়না তদন্ত রিপোর্টে ঘাতকদের নিষ্ঠুর অত্যাচার, নির্মম মারপিট ও লাঠির আঘাতের কারণে রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে। রাজনের শরীরে ৬৪টি আঘাতের চিহ্ন ছিল। ঘাতকরা খুনের ঘটনা আড়াল করতে ভ্যান চুরির মিথ্যা অপবাদ দিয়েছিলো। অথচ ওইদিন ওয়ার্কশপে কোনো ভ্যান গাড়ি ছিল না। মূলতঃ চুরির ঘটনাটি ছিল মিথ্যা, বানোয়াট। হত্যার পর রাতে আসামি কামরুল, আলী হায়দার, মুহিত আলম তড়িঘড়ি করে একটি গাড়িতে করে রাজনের মৃতদেহ গুম করার চেষ্টাকালে গ্রামবাসী মুহিত আলমকে আটক করেন। অন্যরা পালিয়ে যায়। ঘটনার পরপরই মূল আসামী কামরুল সৌদি আরব চলে যায়। তবে, ১৩ জুলাই সেখানে প্রবাসী বাংলাদেশিরা তাকে আটক করে।

গত ১৬ আগস্ট রাজন হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিলেট মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক সুরঞ্জিত তালুকদার ১৩ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করেন। আদালত ২৪ আগস্ট চার্জশিট আমলে নেন। ২২ সেপ্টেম্বর ১৩ জনকে অভিযুক্ত করে রাজন হত্যা মামলায় অভিযোগ (চার্জ) গঠন করেন আদালত।

অভিযুক্তরা হচ্ছেন- সিলেট সদর উপজেলার জালালাবাদ থানার কুমারগাঁও এলাকার শেখপাড়া গ্রামের সৌদি প্রবাসী কামরুল ইসলাম, তার মেজো ভাই মুহিদ আলম (৩২), বড়ভাই আলী হায়দার ওরফে আলী (৩৪), ছোটভাই পলাতক শামীম আহমদ (২০), সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার ঘাগটিয়া গ্রামের মো. জাকির হোসেন পাভেল ওরফে রাজু (১৮), জালালাবাদ থানার পীরপুর গ্রামের সাদিক আহমদ ময়না ওরফে বড় ময়না ওরফে ময়না চৌকিদার (৪৫), পূর্ব জাঙ্গাইল গ্রামের ভিডিওচিত্র ধারণকারী নূর আহমদ ওরফে নূর মিয়া (২০), শেখপাড়া গ্রামের দুলাল আহমদ (৩০), একই গ্রামের তাজউদ্দিন আহমদ ওরফে বাদল (২৮), সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নের জাহাঙ্গীরগাঁওয়ের আয়াজ আলী (৪৫), সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার দোলারবাজার ইউনিয়নের দক্ষিণ কুর্শি ইসলামপুর গ্রামের মো. ফিরোজ আলী (৫০), সিলেটের কুমারগাঁওয়ের (মোল্লাবাড়ী) মোঃ আজমত উল্লাহ (৪২) ও হায়দরপুর গ্রামের রুহুল আমিন রুহেল (২৫)।

হত্যার পর লাশ গুম চেষ্টার অভিযোগে আদালতে মুহিদ আলম, ময়না চৌকিদার, তাজ উদ্দিন আহমদ বাদল ও শামীম আহমদের বিরুদ্ধে আলাদা অভিযোগ আনা হয়। গত ১ অক্টোবর থেকে শুরু হয় রাজন হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ এবং চলে ১৮ অক্টোবর পর্যন্ত। মামলার মোট সাক্ষী ৩৮ জনের মধ্যে ৩৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেন আদালত।

গত ৩১ আগস্ট রাজন হত্যার মূল আসামি পলাতক কামরুল ইসলাম, তার ভাই শামীম আহমদ ও আরেক হোতা পাভেলকে পলাতক দেখিয়ে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছিলেন আদালত। গত ৭ সেপ্টেম্বর রাজন হত্যা মামলা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ১ম আদালত থেকে মহানগর দায়রা জজ আদালতে হস্তান্তর করা হয়। ১৫ অক্টোবর মামলার প্রধান আসামি সৌদি আরবে পালিয়ে যাওয়া কামরুল ইসলামকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়।

সিলেট মহানগর দায়রা জজ আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট মফুর আলী জানান, রাজন হত্যা মামলার বিচারিক কার্যক্রম আদালত দ্রুত সময়ে শেষ করেছেন। তাই চার মাসের মাথায় রোববার আলোচিত এই মামলার রায় ঘোষণা করা হবে। তথ্য সূত্র: দৈনিক নয়া দিগন্ত

Show More

News Desk

তিস্তা নিউজের নিউজ রুম থেকে সমস্ত বিভাগসহ বাংলাদেশের সর্বশেষ সংবাদ প্রকাশ করা হয়। আপনি যদি তিস্তানিউজ ২৪.কম এ প্রকাশের জন্য আমাদের ট্রেন্ডিং নিউজ প্রেরণ করতে চান তবে আসুন এখনই আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। আপনার নিউজটি আমাদের নিউজ রুম থেকে নিউজ ডেস্ক হিসাবে প্রকাশিত হবে। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদান্তে- আব্দুল লতিফ খান, সম্পাদক মন্ডলির সভাপতি।

Related Articles

Back to top button
Close