প্রতিবেদন

“এমপি আফতাবের বিরুদ্ধে ষড়ষন্ত্রের চেষ্টাকে ঘৃনাভরে প্রত্যাক্ষান”

স্টাফ রিপোর্টার: মানুষের ভাল কাজকে ভাল বলতে কৃপনতা কেন? মানুষ মরার পরে প্রশংসা করার “এমপি আফতাবের বিরুদ্ধে ষড়ষন্ত্রের চেষ্টা ঘৃনাভরে প্রত্যাক্ষান”চেয়ে বরং বেঁচে থাকাবস্থায় তার ভালকাজ গুলোর প্রশংসা করা উচিৎ। দায়িত্বশীল মানুষের কাছে ভাল কিছু পেতে হলে নিশ্চয় তার ভাল কাজ গুলোর গুনগান গাওয়ার দৃষ্টান্ত স্থপন করতে হবে। তবেই এগিয়ে যাবে দেশ। এগিয়ে যাবে সমাজ ও সমাজের মানুষ। কিন্তু আমরা তা না করে উল্টো পথে চলাটাকেই বেশী গুরুত্ব দিয়ে থাকি। কাউকে মূল্যায়ন করা বা তার ভাল কাজের প্রশংসা করা একটি গুণ। সবার মধ্যেই এই গুণ থাকা উাচৎ। কিন্তু অনেকের মধ্যেই এটা লক্ষ্য করা যায় না। কেউ কেউ আছেন কখন কারও প্রশংসা করতে পারেন না আবার কার প্রশংসা শুনতেও পারেন না। এটা এক ধরনের হীনমন্যতা, যা পরিত্যাগ করা উচিৎ। ধর্মেও আছে, ভাল কাজ করা আল্লাহ তাআলার নিয়ামত। যার ফলে ভাল কাজের জন্য আল্লাহর শুকরিয়া ও প্রশংসা করা বান্দার জন্য ওয়াজিব।
এত কিছু আলোচনার মূলে হলো: সম্প্রতি জাতীয় সংসদের নীলফামারী-১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকারকে নিয়ে একটি মহল নানা গুনঞ্জন ছড়িয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছেন। যদিও সে চেষ্টাকে এলাকার বিবেকবান সচেতন মানুষ ইতোমধ্যে তা ঘৃনাভরে প্রত্যাক্ষাণ করেছেন।
প্রসঙ্গ উল্লেখ: বাংলাদেশ স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ, ডিমলা উপজেলা শাখার আয়োজনে গত শনিবার (১২ মার্চ,২০১৬ খ্রিঃ) “আধুনিক বাংলাদেশ গঠনে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বৃন্দের ভুমিকা” শীর্ষক এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এদিন নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার প্রাথমিক পর্যায়ের শিক্ষকবৃন্দ সরকারি বিধিমোতাবেক প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে ওই মতবিনিময় সভায় মিলিত হয়ে ছিলেন।

ডিমলা উপজেলা সদরে সংসদ সদস্যের মিল চাতাল চত্বরে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় সভাপত্বিত করেন ডিমলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও নিজ সুন্দরখাতা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজিজুল ইসলাম। এতে প্রধান অতিথি নীলফামারী-১ আসনের সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার, বিশেষ অতিথি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা তবিবুল ইসলাম বক্তৃতা করেন। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তৃতা করেন, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম, বাংলাদেশ স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের আহবায়ক ও বাবুরহাট মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আসাদুজ্জামান জুয়েল, উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক সহিদুল ইসলাম ও দপ্তর সম্পাদক জহুরুল ইসলাম ভুইয়াসহ আরো অনেকেই।

এ ছাড়া ডিমলা উপজেলার স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার শিক্ষকবৃন্দের সম্বনয়ে “শিক্ষাবান্ধব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা”কে অভিনন্দন জানাতে গত সোমবার(১৪ মার্চ, ২০১৬ খ্রিঃ) সকাল ১১টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত একই স্থানে পৃথক এক শিক্ষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন অনুষ্ঠানের আয়োজক স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের উপজেলা আহবায়ক আশফাকারুল হক পিনো। এতে বক্তৃতা করেন, প্রধান অতিথি নীলফামারী-১ আসনের সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার, বিশেষ অতিথি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা তবিবুল ইসলাম। রংপুর অঞ্চলের মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারি পরিদর্শক হানিফ সরকার, স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ নীলফামারী জেলা শাখার সদস্য সচিব খোকা রাম রায়, ডিমলা ইসলামিয়া ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ হাসিম হায়দায় অপু,  ডিমলা জেলা পরিষদ স্কুল এ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল হালিম, ডিমলা বিএমআই কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল কাদের, মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি লুৎফর রহমান, সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিম ও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক সহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

এদিনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য আফতাব উদ্দিন সরকার বর্তমান সরকারের সফলা তুলে ধরে বলেন, ডিমলা উপজেলায় শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শ্রেণিকক্ষে মালটিমিডিয়া কনটেন্টের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মাঝে ক্লাস পরিচালনা নিশ্চিত করতে হবে। এজন্য  তিনি  প্রতিষ্ঠান প্রধান ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে নিয়মিত ক্লাস তদারকি করার নির্দেশনা প্রদান করেন।

গত শনিবারের মতবিনিময় সভা “শিক্ষার গুনগত মান বৃদ্ধি”তে নিশ্চয় ইতিবাচক আলো ছড়াবে। এতে কার কোন সন্দেহ পোষণ করার সুযোগ নেই বলে মনে করেন এলাকার শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকবৃন্দ।

পাশাপাশি সোমবারের শিক্ষক সমাবেশ নিঃসন্দেহে একটি ভাল উদ্যেগ। বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা ক্ষেত্রে যে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছেন এবং দেশে অবহেলিত শিক্ষক সমাজের কথা বিবেচনায় নিয়ে বেতন-ভাতার সরকারি অংশ দ্বি-গুণ করার যে ঘোষণা দিয়েছেন তাতেই প্রমান হয় বঙ্গবন্ধুর কন্যা একজন শিক্ষা বান্ধব প্রধানমন্ত্রী। এ কারণে স্থানিয় সংসদ সদস্যের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভালকাজ গুলোকে যথাযথ মূল্যায়ন তার প্রশংসা করাটা আমাদের নৈতিক কর্তব্যের মধ্যেই পড়ে বলে মনে করছেন অনেকেই।
এক্ষেত্রে একটি কথা না বললেই নয়, সমাজে কাজ করতে গেলে নিজের অজান্তে কিছু ভুলত্রুটি হতে পারে সুতরাং এমন কোন ত্রুটি কারো কাছে পরিলক্ষিত হলে আসুন আমরা তার সংশোধন ও গঠন মূলক সমালোচনা করি তার উপস্থিতেই। তবে এর পাশাপাশি ওই ব্যক্তির ভালকাজ গুলোকে মূল্যায়নে নিয়ে এসে তার কাছ থেকে আর ভাল কিছু পাওয়ার লক্ষ্যে প্রশংসার মনোবল তৈরী করি।
অতএব আমাদের মনে রাখতে হবে অন্যের মূল্যায়ন করলে নিজেও অন্যের কাছে মূল্য পাওয়া যায়। খারাপ কাজের গঠন মূলক সমালোচনার পাশাপাশি ভালো কাজের প্রশংসা করা উচিৎ। নইলে পৃথিবীতে কেউ ভাল কাজ করবেনা, ভাল কাজের জন্ম হবেনা।

Show More

News Desk

তিস্তা নিউজের নিউজ রুম থেকে সমস্ত বিভাগসহ বাংলাদেশের সর্বশেষ সংবাদ প্রকাশ করা হয়। আপনি যদি তিস্তানিউজ ২৪.কম এ প্রকাশের জন্য আমাদের ট্রেন্ডিং নিউজ প্রেরণ করতে চান তবে আসুন এখনই আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। আপনার নিউজটি আমাদের নিউজ রুম থেকে নিউজ ডেস্ক হিসাবে প্রকাশিত হবে। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদান্তে- আব্দুল লতিফ খান, সম্পাদক মন্ডলির সভাপতি।

Related Articles

Back to top button
Close