Featured

ছিটবাসীর গাড়ীর বহরে দাদি নাতনী নিহত

http://tistanews24.com/wp-content/uploads/2015/11/IMG_1569-Copy.jpgইনজামাম-উল-হক নির্ণয়,নীলফামারী:  বিলুপ্ত ছিটমহলের পরিচিত অনেকেই নাগরিকত্ব গ্রহণ করে ভারতে চলে যাচ্ছিলেন সোমবার। তাদের একনজর দেখার জন্য আট বছরের শিশু নাতনী সুরাইয়া আক্তারকে নিয়ে সীমান্তে ছুটে আসেন দাদি কহিনুর বেগম (৫৫)। কিন্তু সেই পরিচিত মুখ আর দেখা হলো না তাদের। ভারত গামীদের গাড়ি বহরের ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে নিহত হন তারা। ঘটনাটি সোমবার বেলা সোয়া দুইটার দিকে ঘটে নীলফামারীর ডোমার উপজেলার চিলাহাটি সীমান্তের ডাঙ্গাপাড়া বিজিবি ক্যাম্পের অদুরে ঘটে। নিহত কহিনুর বেগম ওই উপজেলার ভোগডাবুড়ি ইউনিয়নের বিওপি বাজার প্রামানিক পাড়ার ভ্যান চালক বুধারু মামুদের স্ত্রী ও  তাদের ছেলে শাহাদাত হোসেনের মেয়ে সুরাইয়া আক্তার।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সোমবার দুপুরে পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার বিলুপ্ত ছিটমহলের কোটভাজনী ও বালাপাড়া খাগড়াবাড়ির ভারতীয় নাগরিকত্ব গ্রহনকারী ২৮ পরিবারের ১৪৭ সদস্য চিলাহাটি সাীমান্ত হয়ে গাড়িবহরে ভারতে যাচ্ছিল। এসময় একটি ব্যাটারি চালিত রিকসাভ্যানে নাতনীকে নিয়ে তাদের দেখতে যাচ্ছিলেন কহিনুর বেগম। পথে ভ্যান থেকে ছিটকে পড়ে ওই গাড়ি বহরের একটি ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারায় দাদি কহিনূর বেগম। শিশু সুরাইয়াকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে চিলাহাটি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নেয়া হলে সেখানে তার মৃতু হয়। এ ঘটনার এলাকাবাসী সড়কটি ব্যারিকেট দিলে ওই গাড়ীর বহরটি আটকা পড়ে। পরে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে গাড়ীর বহরটি ছাড়িয়ে ভারতের সীমান্তে প্রবেশ করানো হয়।ভোগডাবুড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু তাদের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ওই সড়ক দূর্গটনার কারণে গাড়ি বহরটির ভারতে প্রবেশে খানিকটা বিলম্ব ঘটে।ডোমার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোয়াজ্জেম হোয়েস ওই দূর্ঘটনার কথা নিশ্চিত করেছেন।

Show More

News Desk

তিস্তা নিউজের নিউজ রুম থেকে সমস্ত বিভাগসহ বাংলাদেশের সর্বশেষ সংবাদ প্রকাশ করা হয়। আপনি যদি তিস্তানিউজ ২৪.কম এ প্রকাশের জন্য আমাদের ট্রেন্ডিং নিউজ প্রেরণ করতে চান তবে আসুন এখনই আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। আপনার নিউজটি আমাদের নিউজ রুম থেকে নিউজ ডেস্ক হিসাবে প্রকাশিত হবে। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদান্তে- আব্দুল লতিফ খান, সম্পাদক মন্ডলির সভাপতি।

Related Articles

Back to top button
Close