সারাদেশ

জৈন্তাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কোয়ার্টার ভাড়া নিয়েছে ঔষধ কোম্পানীর কর্মচারী

http://tistanews24.com/wp-content/uploads/2016/01/Jaintapur_19-01-20161.jpgজৈন্তাপুর(সিলেট) থেকে মোঃ রেজওয়ান করিম সাব্বির : নানা অনিয়ম ও দূর্নিতির মাধ্যমে সিলেটের জৈন্তাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চললেও কর্তৃপ নিরর ভূমিকায়। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সরকারি কোয়ার্টাস উচ্চ মূল্যে ভাড়া দেওয়া হয়েছে ঔষধ কোম্পানীর কর্মচারীকে। ৫০শষ্যার হাসপাতাল উন্নিত করা হলেও প্রশাসনিক অনুমতি না থাকায় ব্যবহৃত হচ্ছে না নতুন ভবন।
অনুসন্ধানে যানাযায়- জৈন্তাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স দীর্ঘ দিন হতে নানা অনিয়ম ও দূর্নিতি চলে আসছে। আবাসিক মেডিকেল অফিসার সবুল চন্দ্র বর্মণ ও ষ্টোক কিপার শিব্বির আহমদ নিয়ন্ত্রন করেছে কমপ্লেক্সটি। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেটির সরকারি কোয়ার্টাস উচ্চ মূল্যে ভাড়া দেওয়া হয়েছে ঔষধ কোম্পানীর কর্মচারীকে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রবশে পথ হইতে সম্পূর্ণ কমপ্লেক্স এরিয়া এখন পরিনত হয়েছে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ হিসাবে। রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেওয়া হচ্ছে সেই ১৫-২০বৎসরের পুরোনে বেড়ে। এছাড়া সন্ধ্যা হওয়ার পর পর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হয়ে উঠে মাদক সেবীদের নিরাপদ আস্তানা হিসাবে। এবিষয় কথা হয় পূর্ব জাফলং ইউনিয়ন হতে চিকিৎসা নিতে আসা রফিক সরকারর সাথে- তিনি বলেন ভাই মেয়েকে নিয়ে আমার স্ত্রী সকালে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যায় কিন্ত দুপর ১টা পর্যন্ত কোন ডাক্তার পেল না। অবশেষে একান্তবাধ্য হয়ে মেয়েকে হাসাপালে রেখে প্রাইভেট ফিস দিয়ে একই হাসপাতালের চিকিৎসক এর মাধ্যমে সেবা নেওয়া হয়েছে। এবিষয়ে জাফলং মোহাম্মদপুর এলাকার বাসিন্ধা করিম মাহমুদ লিমন জানান- ভাই একটু আপনাদের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে এসে যান, ছেলেটিকে হাসপাতালে ভর্তি করেছি। কিন্তু সেই সকালে আসার পর হতে সন্ধ্যা ৭টা অবধি ডাক্তার পেলাম না। পরিশেষে তিনিও রফিক সরকারের পথ অবলম্বন করতে হয়েছে। এবিষয়ে পূর্ব জাফলং ইউনিয়নের বাসিন্ধা জিয়াউর রহমান জিয়া হুজুর তার ফেইস বুকে স্যাটার্স লিখেন- এভাবে “৫০শয্যায় উন্নিত হলে উন্নতি হয়নি সেবা ও পরিবেশের!!” তিনি লিখেন সকাল ১১টায় ভর্তি হলেও বিকাল ৩টা পর্যন্ত কোন ডাক্তার এসে রোগী দেখে নাই। পরে নার্সদের সাথে আলাপকালে জানতে পারেন সন্ধ্যার পর ডাক্তার রোগী দেখবেন। এছাড়া তিনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর পরিবেশ নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপরে দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তার ফেইসবুক স্যাটাসে। অনুরোপ ভাবে জৈন্তাপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার রোগীরা স্বাস্থ্য সেবা পেতে এলে নানা দূভোগে পড়তে হয় বলে জানান অনেকেই।
এদিকে অনুসন্ধানে যানাযায় দীর্ঘ ১বৎসরের অধিক সময় হতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর সরকারী কোয়ার্টার ৪র্থ তলায় ভাড়া নিয়ে বসবাস করছেন জেনারেল ফার্মাসিটিকেল কোম্পানির রিপ্রেজেন্টিভ ইমদাদ। ২০১৪সনে ইমদাদ এর স্ত্রী উর্মী বেগম স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর মা-মনি প্রজেক্টে চাকুরী করতেন সেই সুবাদে তিনি সরকারি কোয়ার্টারে থাকার সুযোগ পান। এদিকে ২০১৪সনের শেষ দিকে মাতৃত্বকালীন ছুটি গ্রহন করে উমি বেগম। কিন্তু পরবর্তীতে ২০১৪সনের ডিসেম্বর মাসে উক্ত প্রজেক্টে হতে ছাড়পত্র দেওয়া উর্মিকে এবং সরকারি কোয়ার্টাস ছাড়ার জন্য বলা হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কর্মকর্তা কর্মচারীরা জানান- পাবলিক কোম্পনীর ইমদাদ পরিবার কিভাবে সরকারি কোয়ার্টারে থাকেছে তা সাবেক অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র বর্মণ এবং ষ্টোর কিপার শিব্বির আহমদ বলতে পারে। এছাড়া শিব্বির আহমদ এর বিরুদ্ধে অনিয়ম দূর্নিতির বিরুদ্ধে কয়েক জাতীয় ও স্থানীয় সংবাদ পত্রে সংবাদ প্রকাশ হলেও তিনি স্বপদে বহাল রয়েছেন।
এবিষয়ে সুবল চন্দ্র বর্মন এবং ষ্টোর কিপার শিব্বির আহমদ এর মোবাইল ফোনে বার বার যোগাযোগ করা হলে ফোন রিসিভ করেননি।
এবিষয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকলাপনা কর্মকর্তা আলা উদ্দিন আহমদ এর সাথে আলাপকালে তিনি বলেন- আমি এই ষ্টেশনে নতুন যোগদান করেছি আপনি সময় করে ১১ টার দিকে অফিসে আসেন এবিষয়ে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

Show More

News Desk

তিস্তা নিউজের নিউজ রুম থেকে সমস্ত বিভাগসহ বাংলাদেশের সর্বশেষ সংবাদ প্রকাশ করা হয়। আপনি যদি তিস্তানিউজ ২৪.কম এ প্রকাশের জন্য আমাদের ট্রেন্ডিং নিউজ প্রেরণ করতে চান তবে আসুন এখনই আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। আপনার নিউজটি আমাদের নিউজ রুম থেকে নিউজ ডেস্ক হিসাবে প্রকাশিত হবে। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদান্তে- আব্দুল লতিফ খান, সম্পাদক মন্ডলির সভাপতি।

Related Articles

Back to top button
Close