সারাদেশ

পরীক্ষামূলক ভাবে বড়পুকুরিয়া খনি থেকে কয়লা উত্তোলন শুরু

http://tistanews24.com/wp-content/uploads/2016/01/99996663.jpgমোঃ আরিফ জাওয়াদ, দিনাজপুর: উত্তরাঞ্চলের একমাত্র কয়লা খনি দিনাজপুর-বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিটি দেড় মাস বন্ধ থাকার পর,  পুনরায় বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি ভূ-গর্ভস্থ ১২০৫ নং নতুন কোল ফেইস থেকে পরীক্ষা মূলক ভাবে কয়লা উত্তোলন শুরু হয়েছে, বলে জানায় খনির কর্তৃপক্ষ।

দিনাজপুর-বড়পুকুরিয়া খনির মহাব্যবস্থাপক মাইনিং প্রেকৌশলী হাবিব উদ্দিন আহম্মেদ জানায়, ভূ-গর্ভে উৎপাদনশীল ১২০৮ নং কোল ফেইসের কয়লা মজুদ শেষ হয়ে যাওয়ার পর, গত ২০১৫ সালে ২২শে নভেম্বর থেকে খনির ভূ-গর্ভ থেকে পুরোপুরি কয়লা উত্তোলন বন্ধ রাখা হয়েছিল।

এর পর ১২০৮ নং কোল ফেইসে ব্যবহৃত উৎপাদন যন্ত্রপাতি সরিয়ে ফেলে ১২০৫ নং ফেইসে স্থাপন করে পরীক্ষা মূলক ভাবে গত ৭ই জানুয়ারি(বৃহস্পতিবার) থেকে উৎপাদন শুরু করা হয় বলে নিশ্চিত করে ঐ কর্মকর্তা।

সূত্র জানায়, ১২০৫ নং ফেইসটিতে উত্তোলন যোগ্য মজুদ কয়লার পরিমান প্রায় ৪ লক্ষ থেকে ৬ লুক্ষ মেট্রিক টন হতে পারে। তবে ভূ-গর্ভস্থ ঐ ফেইসটি সম্পূর্ণ ঝুকিপূর্ণ। খনির শ্রমিকেরা জীবনের ঝুকি নিয়ে ঐ ভূগর্ভে কাজ করছেন। এর আগে ২০১৪ সালের এপ্রিল মাসের শেষে ঐ ফেইস থেকে পরীক্ষা মূলক কয়লা উৎপাদন শুরু ১০ থেকে ১২ দিনের মাথায় ১০ই মে প্রচন্ড পানি প্রবাহ অস্বাভাবিক বেড়ে গিয়ে সেখানে জলাধারের সৃষ্টি হয় এবং কয়লা উত্তোলন পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়।

খনির ভূ-গর্ভে কয়লা স্তরের উপরের অংশে কিছু কিছু জায়গায় বড় বড় পানির পকেট রয়েছে। সেখানে ঐ পানিগুলি জমা হয়। কয়লা কাটতে গিয়ে পানির পকেট ভেঙ্গে যাওয়ায় ঐ সময় পানি প্রবাহের সৃষ্টি হয়। সে সময় খনি ভূ-গর্ভের স্থাপিত উচ্চ ক্ষমতা সম্পূর্ণ ১৩টি পাম্প চীন থেকে এনে ২৪ ঘন্টা পাম্প চালু রেখে প্রতি ঘন্টায় প্রায় ২হাজারের অধিক ঘনমিটার পানি সারফেজ থেকে সরিয়ে ফেলেও পানি প্রাবাহ নিয়ন্ত্রণে আনা যায়নি। পরে ১২০৫ নং কোল ফেইসটি সাময়িকভাবে মাইনিংয়ে কর্মরত কর্তৃপক্ষ পরিত্যাক্ত ঘোষণা করে। পরবর্তীতে খনির উৎপাদন ও রক্ষণাবেক্ষণ ঠিকাদার চীনের সিএমসি-এক্সএমসি কনসোডিয়ামের এক্সপার্টরা চীন থেকে এসে কয়লা খনির ঐ ফেইসটি পরিদর্শন ও পরীক্ষা নিরীক্ষা করে যাবতীয় তথ্য উপাত্ত নিয়ে যায়। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় খনির ভূ-গর্ভ থেকে পানি প্রবাহ নিয়ন্ত্রণে রেখে খনির ঐ ফেইস থেকে কয়লা উত্তোলন শুরু করেছে। বর্তমান বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে যে পরিমাণ কয়লা তোলা হচ্ছে এতে করে দিন দিন খনিটি ঝুকি বাড়ছে, বলে জানায় ঐ সূত্রটি।

এ ব্যাপারে খনিতে কর্মরত কয়েকজন শ্রমিক নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তারা জানায়, অনেকদূর থেকে কয়লা তোলা হচ্ছে। যে প্রযুক্তি ব্যবহার করে সাপোর্টিং দিয়ে কাজ করা হচ্ছে তা সবসময় ঝুকিপূর্ণ, গভীরতা বৃদ্ধি পাওয়ায় এত নিচ থেকে কয়লা তুলে আনা অনেক কঠিন ব্যাপার। ফলে আগামীতে কয়লা তুলতে হিমশিম খেতে হবে তাদের। তাছাড়া চীনা কোম্পানী, পূর্বের নিম্ন মানের মালামাল ও ভূ-গর্ভের নিচে ব্যবহার করছে।
খনি কর্তৃপক্ষ তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থাও নেন না। সেই পুরাতন যন্ত্রপাতি ব্যবহার করছে চীনা কোম্পানী, এ ধরনের অভিযোগ তোলে শ্রমিকেরা।

Show More

News Desk

তিস্তা নিউজের নিউজ রুম থেকে সমস্ত বিভাগসহ বাংলাদেশের সর্বশেষ সংবাদ প্রকাশ করা হয়। আপনি যদি তিস্তানিউজ ২৪.কম এ প্রকাশের জন্য আমাদের ট্রেন্ডিং নিউজ প্রেরণ করতে চান তবে আসুন এখনই আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। আপনার নিউজটি আমাদের নিউজ রুম থেকে নিউজ ডেস্ক হিসাবে প্রকাশিত হবে। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদান্তে- আব্দুল লতিফ খান, সম্পাদক মন্ডলির সভাপতি।

Related Articles

Back to top button
Close