Featured

‘ভারত’ এর পর ‘ভারতী’ গেল ভারতে

http://tistanews24.com/wp-content/uploads/2015/11/PPPPPPPP.jpgইনজামাম-উল-হক নির্ণয়,নীলফামারী : ঘুমে বিভোর তিন দিন বয়সের কন্যা নবজাতক ভারতী রানী ওরফে একাদশী। অপর দিকে আঠাশ দিনের সুভাস রায় চোখ খুলে চারিদিক দেখছিল। এরা কিছুই বুঝতে না পারলেও অসংখ্য মানুষের কোলাহল হয়তো কানে বাজছিল। এক দেশে জন্ম নিয়ে অন্যদেশে স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য ওদের চলে যেতে হলো। মঙ্গলবার দুপুরে  এই দুই নবজাতক তাদের মা বাবা সহ  ৩০ পরিবারের ১৫২ জনের সাথে চিলাহাটি-হলদিবাড়ি অভিবাসন সীমান্ত দিয়ে ভারত গমন করে। স্বাধীন বাংলাদেশের জন্মস্থান ছেড়ে ওই দুই নবজাতক কিছুই বুঝতে পারলোনা কি জন্মটা কোথায়? চলে গেল কোথায় ?
ভারত গমনের আগে নবজাতক ভারতী ও সুবাসের পরিবারের সাথে কথা বলা হয়। এরা সকলে পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার বিলুপ্ত ভারতীয় ছিটমহল দহলা খাগড়াবাড়ির পরিবার। ভারতীর পিতা মদন রায়,মা মায়া রায়। সাথে রয়েছে ভারতীর তিন বোন শান্তনা রানী (১০),পলি  রানী (৮) ও কবিতা রানী(৩)। আরো ছিল ভারতীর দাদা ঈশ্বর নারায়ন,দাদী সুখো রানী,কাকা অক্ষয় রায়। তিন দিন বয়সের ভারতী সহ এই পরিবারে সদস্য সংখ্য ৯ জন। তারা জানায় ছিটমহল বিনিময়ের আগে যখন জনগণনা হয় তখন ভারতী ছিল তার মায়ের গর্ভে। তখনই এই পরিবারটির ৮ জন ভারত গমনের জন্য নাম নিবন্ধন করেছিল। গত রবিবার ( ২২ নবেশ্বর) দুপুরে পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে ভারতী জন্মগ্রহন করেন। সন্তান প্রসবের পর পুরোপুরি সুস্থ্য হয়ে উঠেনি নবজাতক ভারতী রানীর মা মায়া রানী। এই অসুস্থ্য শরীরে নবজাতক কন্যা সন্তান ভারতীকে কোলে তুলে ভারত গমন করতে হলো। মায়া রানী জানায় তার তিন মেয়ে থাকায় একটি পুত্র সন্তানের আশা করেছিল। নবজাতক ভারতীর বাবা মদন রায় বললেন পুত্র সন্তান আশা করেছিলাম। কিন্তু পুত্র হয়নি। হয়েছে কন্যা সন্তানের জন্ম। তাই ভাগ্য কে মেনে নিয়ে  ভারত চলে যাওয়ার আগে চতুর্থ কন্যা সন্তান জন্ম নেয়ায় তার নাম ভারতী রানী ওরফে একাদশী রেখেছি। এই ভারতী হয়তো ভারতে আমাদের জীবন যাত্রার মান বদলিয়ে দিয়ে ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে দিতে পারে।
এই দলে ভারত গমনে ছিল অপর ২৮ দিনের নবজাতক সুভাস রায়। সে ওই একই বিলুপ্ত ছিটমহলের প্রফুল্ল কুমার রায় ও মা স্বরবালা রায়। এই দম্পক্তির নবজাতক সুভাস রায় সহ তিন পুত্র সন্তান। এরা হলো প্রদীপ রায়(১৬) ও উজ্জল রায়(১৪)। এই দম্পক্তি জানায় একটি কন্যা সন্তানের আশা করেছিল। কিন্তু হয়নি। ভারত গমনের  ২৮ দিনের  পূর্বে সুভাসের জন্ম হয়। তাকে পরিবারের সু-বাতাস-সু-কামনা সহ ভাগ্য বদলের হাতিয়ার মনে করেই তার নাম সুভাস রাখা হয়। দলটি যখন ভারত গমন করে তখন নবজাতক দুইজন তাদের মায়ের কোলে ঘুমিয়ে ভারত সীমান্ত অতিক্রম করে।
উল্লেখ যে গত সোমবার (২৩ নবেম্বর) চিলাহাটি-হলদিবাড়ি অভিবাসন সীমান্ত পথ দিয়ে পঞ্চগড় জেলার দ্বিতীয় দফায় যে ২৮ পরিবারের ১৪৭ জন সদস্য ভারত গমন করেছিল সেই দলে  আড়াই মাসের ‘ভারত’ নামের আরেক নবজাতক  ভারত গমন করেছিল। কোটভাজনী ছিটের বাসিন্দা ছিল ভারতের তার বাবা লালচাঁদ ও মা সুশিলা রানী। তাদের সাথে ছিল এই দম্পক্তির ছয় বছরের মেয়ে পুস্প। সাথে আরও ছিল  নবজাতক ভারতের দাদা ধুপেন্দ্র রায়, কাকা আমাতু রায়(২১)। ভারতের দাদীর অনেক আগেই মৃত্যু হয়।

Show More

News Desk

তিস্তা নিউজের নিউজ রুম থেকে সমস্ত বিভাগসহ বাংলাদেশের সর্বশেষ সংবাদ প্রকাশ করা হয়। আপনি যদি তিস্তানিউজ ২৪.কম এ প্রকাশের জন্য আমাদের ট্রেন্ডিং নিউজ প্রেরণ করতে চান তবে আসুন এখনই আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। আপনার নিউজটি আমাদের নিউজ রুম থেকে নিউজ ডেস্ক হিসাবে প্রকাশিত হবে। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদান্তে- আব্দুল লতিফ খান, সম্পাদক মন্ডলির সভাপতি।

Related Articles

Back to top button
Close