Featured

ভিক্ষুক মুক্ত কিশোরীগঞ্জকে মডেল আখ্যা দিলেন মন্ত্রী পরিষদের সচিব শফিউল আলম

http://tistanews24.com/wp-content/uploads/2015/11/Babu-kkkk.jpgইনজামাম-উল-হক নির্ণয়, নীলফামারী : ভিক্ষুক মুক্ত নীলফামারীর কিশোরীগঞ্জ উপজেলার ভিক্ষুকের পেশা ছেড়ে দেয়া ভিক্ষকদের সাথে উঠোন বৈঠক করছেন বর্তমান সরকারের মন্ত্রী পরিষদের সচিব শফিউল আলম।

নীলফামারীর জেলা প্রশাসক জাকীর হোসেনের সভাপতিত্বে এবং তার সঞ্চালনায় এ সময় মন্ত্রী পরিষদের সচিব, ভিক্ষাবৃত্তি ছেড়ে দেয়া বেশ কিছু ভিক্ষুকদের মুখ থেকে তাদের স্বাবলম্বী হবার বাস্তব কাহিনী শুনে অভিভুত হয়ে পড়েন। একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের আওতায় পুনর্বাসিত ভিক্ষুকদের সাথে মতবিনিময়ে শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় এই উঠোন বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় ওই উপজেলার রনচন্ডি স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে। জেলা প্রশাসনের সহযোগীতায় ওই বৈঠকটির আয়োজন করে কিশোরীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন। উঠোন বৈঠকের প্রধান অতিথি বর্তমান সরকারের মন্ত্রী পরিষদের সচিব শফিউল আলম, তার বক্তব্যের শুরুতেই নবীর শিক্ষা, “করনা ভিক্ষা মেহেনত করে খাও সবে”, এই উক্তি টি উল্লেখ করে  বলেন, আমি অভিভুত। একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের আওতায় এসে ভিক্ষাবৃত্তি ছেড়ে ক্ষুদ্র ব্যবসা, গাভী-ভেড়া, ছাগল.হাঁস- মুরগী পালনের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হওয়া যে, যায় তা দেখিয়ে দিলেন আপনারা।

প্রধান অতিথি কিশোরীগঞ্জ উপজেলার ভিক্ষাবৃত্তি ছেড়ে দেয়া পরিবার গুলোকে বাংলাদেশের মডেল আখ্যা দিয়ে বলেন এই মডেলকে ধরে রাখতে প্রয়োজনে আরো সহযোগীতা করা হবে। বক্তব্য শেষে মন্ত্রী পরিষদের সচিব অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শফিউল আলম ভিক্ষাবৃত্তি ছেড়ে দেয়া পরিবার গুলোর মাঝে একটি করে কম্বল বিতরন করেন।
এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ের আর্থসামাজিক অবকাঠামো বিভাগের সচিব হুমায়ুন খালিদ, রংপুর বিভাগের কমিশনার দিলোয়ার বখত, কিশোরীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান রশিদুল ইসলাম, কিশোরীগঞ্জ উপজেলাকে ভিক্ষুক মুক্ত করার সফল নায়ক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সিদ্দিকুর রহমান, জেলা প্রশাসনের নেছারত শাখার ডিপুটি কমিশনার (এনডিসি) জ্যোতি প্রু, কিশোরীগঞ্জ থানার ওসি মোস্তাফিজার রহমান, রনচন্ডি ইউপি চেয়ারম্যান মোখলেছুর রহমান প্রমুখ।
উল্লেখ যে ২০১৪ সালের ৫ জুলাই নীলফামারীর কিশোরীগঞ্জ উপজেলাকে আনুষ্ঠনিক ভাবে ভিক্ষুকমুক্ত ঘোষণা করা হয়েছিল। যার সফল নায়ক হলেও ওই উপজেলার ইউএনও সিদ্দিকুর রহমান। তাকে সার্বিকভাবে সহযোগী করেন জেলা প্রশাসক জাকীর হোসেন।
জানা যায়, কিশোরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসাবে সিদ্দিকুর রহমান ২০১৩ সালের ৬ই মার্চ যোগদানের পর বিভিন্ন অফিসে ভিক্ষুকদের গণউপদ্রব লক্ষ্য করে তাদের পুনর্বাসনের কাজ শুরু করেন। স্থানীয় সংসদ সদস্য, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের সাথে মতবিনিময়, ভিক্ষুক পুনর্বাসন কমিটি গঠন, ভিক্ষুক জরিপ, যাচাই-বাচাই করে গোটা উপজেলায় প্রায় এক হাজার প্রকৃত ভিক্ষুক নির্বাচনের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রনয়ন করা হয়। এর পর তাদের বিভিন্ন ক্যাটাগরীতে
পুনর্বসান করা হয়।এর মধ্যে ক্ষুদ্র ব্যবসার উপকরণ ও দ্রব্য সামগ্রী দিয়ে আয় বর্ধক কাজের মাধ্যমে পুনর্বাসন। একটি বাড়ী একটি খামারের সদস্যকরণ,বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা ও ৪০দিনের কর্মসূচীতে অন্তর্ভূক্ত করা হয়। এমন কি উপজেলা পরিষদ চত্বরে পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করে সেখানেও দুইজন ভিক্ষুককের কর্মসংস্থানসহ অনেক ভিক্ষুককে দুই ধরণের সুযোগ-সবিধা দিয়ে তাদের আর্থিক ও সামাজিক দৈন্যতা দুরীকরণের মাধ্যমে পুনর্বাসন করা হয়। অপর দিকে উপজেলা পরিষদের মাধ্যমে ১০ বিঘা জমিতে চা বাগান করে সেখানেও বেশ কিছু ভিক্ষুককে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়া হয়েছে। এসবের পাশাপাশি ঈদ বা অন্য কোন উৎসবে এই সব পরিবারগুলোকে খাদ্য উপকরন বিতরন করা হয়ে থাকে। এখন যে কেউ এই উপজেলা ভ্রমনে এলে খুঁজে পাবেন না একজন ভিক্ষুক। মাত্র এক বছর চার মাসের ব্যবধানে বিভিন্ন উপকরনের সহায়তায় এই সব ভিক্ষুকরা ভিক্ষাবৃত্তি ছেড়ে দিয়ে কর্মসংস্থানে আজ স্বাবলম্বীর পথ খুঁজে পেয়েছে।

Show More

News Desk

তিস্তা নিউজের নিউজ রুম থেকে সমস্ত বিভাগসহ বাংলাদেশের সর্বশেষ সংবাদ প্রকাশ করা হয়। আপনি যদি তিস্তানিউজ ২৪.কম এ প্রকাশের জন্য আমাদের ট্রেন্ডিং নিউজ প্রেরণ করতে চান তবে আসুন এখনই আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। আপনার নিউজটি আমাদের নিউজ রুম থেকে নিউজ ডেস্ক হিসাবে প্রকাশিত হবে। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদান্তে- আব্দুল লতিফ খান, সম্পাদক মন্ডলির সভাপতি।

Related Articles

Back to top button
Close