রাজশাহী বিভাগ

মান্দায় এবার সেই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে তদন্ত

সরকারী নির্দেশ অমান্য করে করোনার সময়ে পরীক্ষা

এম এম হারুন আল রশীদ হীরা, মান্দা (নওগাঁ): সরকারী নির্দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমন থেকে শিক্ষার্থীদের সুরক্ষিত রাখতে দেশের সব স্কুল কলেজসহ সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এ পরিস্থিতির কারণে সব শিক্ষার্থীকে পরবর্তী শ্রেণিতে স্বয়ংক্রীয়ভাবে উত্তীর্ণ করার হবে। শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার সাথে সম্পৃক্ত রাখতে সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচি প্রকাশও করা হয়েছে। আর পরবর্তী শ্রেণিতে শিক্ষার্থীদের বিশেষ পরিচর্যার জন্য অ্যাসাইন্টমেন্ট দেয়া হবে। পরীক্ষা বা অন্য কোনভাবে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন না করতে স্কুল-কলেজগুলোকে নির্দেশ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। এ নির্দেশ অমান্য ও উপেক্ষা করে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে বার্ষিক পরীক্ষা নিচ্ছেন নওগাঁর মান্দা উপজেলার কালীগ্রাম দোডাঙ্গী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনিসুর রহমান সহ অপর ৫জন সহকারী শিক্ষক। এরা হলেন বি-এসসি গণিত শিক্ষক মিজানুর রহমান, ইংরেজি শিক্ষক আবদুল হান্নান ও গোলাম সামদানী, বিজ্ঞান শিক্ষক আল মামুন ও অপর শাখা গণিত শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম।

এসব শিক্ষকরা প্রধান শিক্ষকের যোগসাজসে গত ৩০জুন লক ডাউন উঠে যাবার পর থেকে অদ্যবধি প্রতিমাসে শিক্ষার্থী প্রতি ৩০০টাকা আদায় করে কোচিং বা প্রাইভেট পড়ার নাম করে বিদ্যালয়ের প্রায় সহস্রাধিক শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে গত ৪ মাসে প্রায় ১০ লাখ টাকা আদায় করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আর এসব কারণে কোমলমতি শিক্ষার্থীসহ অভিভাবকদের মাঝে চরম ক্ষোভ হতাশা ও অসন্তোষ দেখা দিয়েেেছ। দেশের শিক্ষা বিষয়ক একমাত্র ডিজিটাল অন লাইন পত্রিকা দৈনিক শিক্ষা ডটকমসহ বিভিন্ন পত্রিকায় ‘শিক্ষামন্ত্রীর নির্দেশ অমান্য করে পরীক্ষা নিচ্ছেন প্রধান শিক্ষক’ শিরোনামে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হলে নওগাঁর জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোবারুল ইসলাম অভিযোগটি আমলে নিয়ে তাৎক্ষনিক এক সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছেন মান্দা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শাহ আলমকে। অভিযোগটি তদন্তের নির্দেশ দিয়ে তিন দিনের মধ্যে তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী শাহী, ১০ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী আপনসহ আরো শিক্ষার্থীরা, সেলিনা বেগম, স্বপনসহ অন্যন্য অভিভাবকরা অভিযোগ করে বলেন, বর্তমানে ৭ম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা চলমান রয়েছে। আগামী ৬ নভেম্বর থেকে স্কুলের ৮ম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা শুরু হতে চলেছে। তাই আগে থেকে পরীক্ষার সময় সূচি দিয়েছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। আর ১৮ নভেম্বর থেকে নবম-দশম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা নেয়া হবে বলে পরীক্ষার সময় সূচি প্রকাশ করেছে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

এছাড়া নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক শিক্ষার্থীর অভিভাবকরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রামন রোধে গুরুত্বপূর্ণ এইচএসসি ও জেএসসি পরীক্ষা বন্ধ করেছে সরকার। কিন্তু এই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কোন আলাউদ্দিনের চেরাগের ক্ষমতাবলে প্রভাব খাটিয়ে জোরপূর্বক শিক্ষার্থীদের মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিয়ে কোন আশায় বার্ষিক পরীক্ষা নিচ্ছেন ও আরো নেবার পরিকল্পণা করেছেন। তা আমাদের কিছুতেই বোধগম্য হচ্ছেনা। পরীক্ষা কেন্দ্রে শিক্ষার্থীরা এক সাথে বসলে করোনা সংক্রামনের ঝুঁকি বেড়ে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে। এমন অবস্থায় সন্তানের পড়াশোনা নিয়ে চিন্তিত অভিভাবকরা। এদিকে, বার্ষিক পরীক্ষার নামে প্রতি শিক্ষার্থীর থেকে প্রতি বিষয়ে ফি বাবদ ২০ টাকা থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত আদায় করা হয়েছে। অভিভাবকদের অভিযোগ শিক্ষকরা ‘অ্যাসাইনমেন্টের নামে পরীক্ষা নিয়ে ফি বাবদ টাকা আদায় করে হাতিয়ে তা নিজেদের পকেটস্থ করে নিচ্ছেন।

কালীগ্রাম দোডাঙ্গী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনিসুর রহমান এ বিষয়ে বলেন, ‘অ্যাসাইমেন্টের জন্য ২০ টাকা করে নেয়া হচ্ছে।’ তবে পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে কিনা সে বিষয়ে সুস্পষ্টভাবে কোন তথ্য এড়িয়ে গিয়ে চতুরতার সাথে তা চেপে যান।

সব পরীক্ষা শিক্ষা মন্ত্রণালয় বন্ধ করার পরেও কেনো ও কোন যুক্তিতে এ পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে জানতে চাইলে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক বলেন, ‘আমি আপনাদের কেনো কৈফিয়ত দিতে বাধ্য নই? আপনারা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে যান। তারা এসব বিষয়ে তথ্য ও উত্তর দেবেন। এ বিষয়ে আর বেশি কিছু বলতে চাচ্ছি না ’

তদন্তের বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোবারুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, আমি ঐ বিদ্যালয়ে বার্ষিক পরীক্ষা নেয়ার বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমে জানতে পারি। সরকারি নির্দেশ অমান্য করে কালীগ্রাম দোডাঙ্গী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পরীক্ষা নিচ্ছেন। ঘটনাটি জানার পরপরই উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে অভিযোগটি তদন্ত করার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আগামী ৩ কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। তদন্তে অভিযোগের সত্যতা যাচাই পূর্বক প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক সহ জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ঘটনাটি সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষের খতিয়ে দেখা প্রয়োজন।

Show More

News Desk

তিস্তা নিউজের নিউজ রুম থেকে সমস্ত বিভাগসহ বাংলাদেশের সর্বশেষ সংবাদ প্রকাশ করা হয়। আপনি যদি তিস্তানিউজ ২৪.কম এ প্রকাশের জন্য আমাদের ট্রেন্ডিং নিউজ প্রেরণ করতে চান তবে আসুন এখনই আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। আপনার নিউজটি আমাদের নিউজ রুম থেকে নিউজ ডেস্ক হিসাবে প্রকাশিত হবে। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদান্তে- আব্দুল লতিফ খান, সম্পাদক মন্ডলির সভাপতি।

Related Articles

Back to top button
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker